• শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন
  • Admin Login
শিরোনাম
যশোর সদর উপজেলা রূপদিয়া প্রেসক্লাবে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। যশোর জেলার সদ্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সার্কেল খ “হয় আমি থাকবো” না হয় মাদক সন্ত্রাস চাঁদাবাজ থাকবে। উপজেলা প্রেস ক্লাব এর কমিটি গঠন মনিরুল সভাপতি,রফিকুল সেক্রেটারি যশোরের ফরিদপুর মসজিদের উন্নয়নের জন্য অনুদান দিলেন চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান। মির্জাগঞ্জে ১ কোটি টাকার নিষিদ্ধ পলিথিন জব্দ,৩ ব্যবসায়ীকে জরিমানা যশোর জেলার এসপি মহাদয় সদ্য ৩ অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে ফুলের শুভেচ্ছা জানান। যশোরে হত্যা মামলায় যুবদলের সম্পাদকসহ ৪ জনকে আটক করেছে কোতয়ালি পুলিশ। যশোরে সড়ক দুর্ঘটনায় রেলগেট মডেল জামে মসজিদের ইমাম নিহত হন। যশোর জেলার প্রতিটা থানায় অসাধু ব্যাবসায়ি সিন্ডিকেট কেজি দরে বিক্রয় করছেন তরমুজ।

Avatar
dainik amar digantor / ৬২ বার
প্রকাশ হয়েছে : সোমবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২১

মির্জাগঞ্জে ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়েই চলছে

এস কে মিন্টু

মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি:

করোনার প্রাদুর্ভাবের মধ্যেই পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়েই চলছে। গত শনিবার মির্জাগঞ্জ হাসপাতালে ১০৬ জন রোগী এবং এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত ৬৬ জন ডায়রিয়া রোগী ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

মির্জাগঞ্জ ৫০ শয্যা হাসাপাতলে আড়াইশত ডায়রিয়া রোগী ভর্তি আছে বর্তমানে। শনিবার মির্জাগঞ্জে কলেরা স্যালাইন সংকট দেখা দেওয়ায় গতকাল রবিবার উপজেলা প্রশাসন থেকে ২শত ব্যাগ কলেরা স্যালাইন সরবরাহ করে মির্জাগঞ্জ হাসপাতালে দেয়া হয়েছে।

এ ঘটনার পর গতকাল রবিবার পটুয়াখালী সিভিল সার্জন মো. জাহাঙ্গীর আলম ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোসা. তানিয়া ফেরদৌস মির্জাগঞ্জ হাসপাতাল পরিদর্শন করেন এবং রোগীদের খোঁজ খবর নেন। গত এক সপ্তাহ ধরে ডায়রিয়া রোগী বৃদ্ধি পাওয়ায় হাসপাতালের নির্ধারিত ওয়ার্ডের শয্যায় স্থান সংকুলান না হওয়ায় বাধ্য হয়ে এ রোগীদের হাসপাতালের বারান্দা কিংবা মেঝেতে শয্যা পেতে চিকিৎসা নিচ্ছে রোগীরা।

ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় তাদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে হাসপাতালের চিকিৎসক ও নার্সদের। অনেকে করোনা সংক্রমণের ভয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে আসছেন না। তারা বাড়িতে বসে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এছাড়াও উপজেলা চৈতা উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ৫০ জন রোগী ডায়রিয়ায় ভর্তি আছেন বলে জানা গেছে। মির্জাগঞ্জ হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্র ও শনিবার মির্জাগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৭৯ জন ডায়রিয়া রোগী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছেন। গত শনিবার চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭৫ জন।

গতকাল রবিবার ৬৬ জন ডায়রিয়া রোগী ভর্তি হয়েছেন। শুক্রবার থেকে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকে। এদের মধ্যে অধিকাংশই বয়স্ক, নারী ও শিশু। মির্জাগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা উপজেলার উত্তর মির্জাগঞ্জ গ্রামের আবদুল জব্বার বলেন, স্ত্রীসহ তিন জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত। দু.জন সুস্থ্য হয়েছেন। এবারে ডায়রিয়া রোগী মির্জাগঞ্জ হাপাতালে আর দেখি নি। তবে পায়রা নদীর পানি লোনা পানি ব্যবহারের কারনে এ সমস্যা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। হাসপাতালে বেড না পেয়ে বারান্দার মেঝেতে চিকিৎসা নিচ্ছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা দিলরুবা ইয়াসমিন লিজা বলেন, মির্জাগঞ্জ হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় গতকাল রবিবার পটুয়াখালী সিভিল সার্জস স্যার মির্জাগঞ্জ হাসপাতাল পরিদর্শন করেছেন। কলেরা স্যালাইন সংকট দেখা দেয়ায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ব্যাক্তিগত উদ্যোগে ২ শত ব্যাগ স্যালাইন বরাদ্ধ করেছেন। তা দিয়ে চিকিৎসা চলছে। খাবার স্যালাইনের কোন সংকট নেই এবং কলোরা স্যালাইন বরাদ্ধ চেয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। বরাদ্ধ পেলেই কলেরা সংকট কেটে যাবে। মির্জাগঞ্জ হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসার জন্য ৮টি টিম গঠন করা হয়েছে এবং ডায়রিয়া রোগীদের চিকিৎসা দিতে আমরা হিমশিম খেতে হচ্ছে। মৌসুম পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে সিজনাল ভাইরাসই এর জন্য দায়ী।


এ জাতীয় আরো খবর

error: Content is protected !!
error: Content is protected !!