• শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৪:৩৬ পূর্বাহ্ন
  • Admin Login
শিরোনাম
যশোর সদর উপজেলা রূপদিয়া প্রেসক্লাবে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। যশোর জেলার সদ্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সার্কেল খ “হয় আমি থাকবো” না হয় মাদক সন্ত্রাস চাঁদাবাজ থাকবে। উপজেলা প্রেস ক্লাব এর কমিটি গঠন মনিরুল সভাপতি,রফিকুল সেক্রেটারি যশোরের ফরিদপুর মসজিদের উন্নয়নের জন্য অনুদান দিলেন চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান। মির্জাগঞ্জে ১ কোটি টাকার নিষিদ্ধ পলিথিন জব্দ,৩ ব্যবসায়ীকে জরিমানা যশোর জেলার এসপি মহাদয় সদ্য ৩ অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে ফুলের শুভেচ্ছা জানান। যশোরে হত্যা মামলায় যুবদলের সম্পাদকসহ ৪ জনকে আটক করেছে কোতয়ালি পুলিশ। যশোরে সড়ক দুর্ঘটনায় রেলগেট মডেল জামে মসজিদের ইমাম নিহত হন। যশোর জেলার প্রতিটা থানায় অসাধু ব্যাবসায়ি সিন্ডিকেট কেজি দরে বিক্রয় করছেন তরমুজ।

“৩০০ জনকে সেহেরি ও ইফাতারি দিচ্ছেন কলাবাগান থানা ছাত্রলীগ “

Avatar
dainik amar digantor / ৯৩ বার
প্রকাশ হয়েছে : শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২১

“৩০০ জনকে সেহেরি ও ইফাতারি দিচ্ছেন লাবাগান থানা ছাত্রলীগ ”

স্টাফ রিপোর্টার

দৈনিক আমার দিগন্তর

করোনা পরিস্থিতিতে ভাসমান অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন রাজধানীর কলাবাগান থানা ছাত্রলীগের সেচ্ছাসেবী সদস্যরা। মহামারিতে অনাহারে অর্ধাহারে থাকা ভাসমান মানুষের হাতে নিয়মিত খাবার তুলে দিচ্ছেন তারা।

জানা গেছে, প্রতিদিন ৩০০ প্যাকেট ইফতারি পৌঁছে দিচ্ছেন তারা। তাদের ইফতারিতে থাকছে- খেজুর, কলা, শশা, পিয়াজু, বেগুনি, আলুরচপ, ছোলা ও মুড়ি। এছাড়া সেহরির জন্য ৩০০ বক্স রান্না করা খাবার (ভাত, মুরগী মাংস ও মিক্সড সবজি) পৌঁছে দিচ্ছেন তারা।

কলাবাগান থানা ছাত্রলীগের সেচ্ছাসেবী সদস্যরা জানান, এই দুর্যোগে তারা চেষ্টা করছেন মানুষের সেবায় এগিয়ে আসার। আসছে রোজার ঈদে এবং তার পরেও সংকটের এ সময়ে রাজধানীর ভাসমান এসব মানুষকে খাবারসহ অন্যান্য সামগ্রী পৌঁছে দিতে চান তারা।

তারা জানান, বিকেল হলেই গ্রুপের সদস্যরা ইফতার নিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় বের হয়ে পড়েন। যেখানে যাকে অভুক্ত দেখতে পান, তার হাতেই তুলে দেন। রমজান শুরুর দিন থেকে ইফতারি বিতরণের মধ্য দিয়ে নিজেদের উদ্যোগে এ কাজ শুরু করেছেন তারা।

রমজানের শুরু থেকেই প্রতিদিন ইফতারি ও সেহরি বিতরণের জন্যে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় বসবাসরত তিনশ জনেরও বেশি হতদরিদ্র, নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তকে সন্ধ্যায় ইফতার ও রাতে সেহরির খাবার দেয়া হচ্ছে এবং পুরো রমজান মাসব্যাপী ইফতার ও সেহেরির খাবার বিতরণ করবে তারা।

কলাবাগান থানা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহমান ( শিমুল ) জানান, প্রথমে আমরা কলাবাগান থানা ছাত্রলীগের সদস্যরা টাকা সংগ্রহ করে খাদ্য সামগ্রী কেনাকাটা করি। এর পর বাবুর্চি রান্না করে দিলে আমরা টিমের ১২-১৩ জন প্যাকিং করে বিকেলে ইফতারের আগে বিতরণে বের হই। আর সেহরির খাবার রাতে বিতরণ করে থাকি।

তিনি জানান, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার অতিদরিদ্র পরিবারগুলোকে খুঁজে বের করে খাবার সহায়তা দিচ্ছেন তারা।

তিনি আরো জানান, এই কর্মসূচি বাস্তবায়নে অর্থ, শ্রম ও সময় দিয়ে সাহায্য করে যাচ্ছেন কলাবাগান থানা ছাত্রলীগের প্রতিটি সেচ্ছাসেবী সদস্যরা। আগামী দিনগুলোতে কষ্টে থাকা আরও বেশি রোজাদারকে ইফতার ও সেহেরির খাবার পৌঁছে দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

কলাবাগান থানা ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক শেখ তৌকির আহমেদ জানান, নানা সীমাবদ্ধতা থাকলেও তারা এ কার্যক্রম থেকে পিছিয়ে যাননি। এই কার্যক্রম সচল রাখতে তারা ব্যয় করেছেন নিজেদের ব্যক্তিগত সঞ্চয়ও। তাদের বিশ্বাস, এই কার্যক্রমে নিশ্চয়ই শুভাকাঙ্ক্ষীরা পাশে দাঁড়াবেন।

তিনি বলেন, এটা হলো দুর্যোগে ন্যূনতম সম্পদ ভাগাভাগি করে টিকে থাকার চেষ্টা। কাজের অভিজ্ঞতা থেকে বুঝেছি, সামনে আরও বড় দুর্যোগ আসছে। এ সময় সবারই উচিত একে অন্যের পাশে থাকা। মানুষকে বাঁচাতে এগিয়ে আসা।


এ জাতীয় আরো খবর

error: Content is protected !!
error: Content is protected !!